সওজের সাবেক প্রধান প্রকৌশলীর সস্ত্রীক বিদেশ যেতে বাধা নেই

 

আমাদের প্রকৌশল ডেস্ক ।

সড়ক জনপথ (সওজ) অধিদফতরের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী মো. জাওয়েদ আলম তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে বিদেশ যেতে দুর্নীতি দমন কমশিন (দুদক) যে বাধা দিয়েছিল তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফলে তাদের বিদেশ যেতে আর কোনো বাধা রইলো না।

একই সঙ্গে, অনুসন্ধানের নামে বার বার নোটিশ দিয়ে আবেদনকারীদের হয়রানি করা কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়েও রুল জারি করেছেন আদালত।

অপর এক আদেশে আদালত বলেছেন, দুদক কর্তৃক জব্দ করা স্থাবর সম্পত্তি ফ্রিজ করা ব্যাংক হিসাবের মধ্যে মো. জাওয়েদ আলম পেনশনের টাকা প্রাপ্ত হবেন তা অবমুক্ত করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে বিদেশ থেকে তিন মাস পর ফিরে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অপর এক রুলে স্বামীস্ত্রীকে বিদেশ যাত্রায় বাধা দেয়া কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে দুদকসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

পৃথক পাঁচটি রিটের শুনানি নিয়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহীম বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এবিএম আলতাফ হোসেন। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী এআরএম কামরুজ্জামান কাকন মো. সাজিদুর রহমান। অন্যদিকে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

আদেশের পর বিষয়ে রিটকারীদের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার এবিএম আলতাফ হোসেন বলেন, আমরা শুনানিতে দুদকের অথরিটিকে চ্যালেঞ্জ করেছিলাম। আর আদালতের মাধ্যমে জানতে চেয়েছিলাম যে, কোন ক্ষমতা বলে একজন নাগরিককে কোনো রকম মামলা ছাড়াই বিদেশ যেতে বাধা দেয়। আর শুধুমাত্র নোটিশ দিয়ে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চালিয়ে দুই বছর বিদেশ যেতে দেয়া হয়নি। তাকে দুই বছর আটকে রাখা হয়েছে তদন্তের নামে। এর পরে আদালতও বিষয়টি নিয়ে দুদকের প্রতি প্রশ্ন তোলেন।

 আইনজীবী কামরুজ্জামান কাকন জানান, আগে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১৮ সালের ২০ জুন তাদের সম্পদ বিবরণী চেয়ে নোটিশ পাঠায় দুদক। এই সময়ের মধ্যে সম্পদের বিবরণী দাখিল করলেও ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি আবারও সম্পদের বিবরণী চেয়ে নোটিশ পাঠায় দুদক। চলতি বছরের জানুয়ারি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের মাধ্যমে আবেদনকারীররা জানতে পারেন তাদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ছাড়া দুদকের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ২৭ জানুয়ারি আবেদনকারীদের স্থাবর সম্পত্তি জব্দ ব্যাংক হিসেব ফ্রিজ করার আদেশ দেন ঢাকা মহানগর সিনিয়র বিশেষ জজ আদালত। এসব বিষয় চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে পাঁচটি আবেদন করেন তাদের আইনজীবী। সেই আবেদনগুলো শুনানি নিয়ে আদেশ দেন আদালত।

     More News Of This Category

Our Like Page